1. nobinbogra@gmail.com : Md. Nobirul Islam (Nobin) : Md. Nobirul Islam (Nobin)
  2. bd.momin95@gmail.com : sojibmomin :
  3. bd.momin00@gmail.com : Abdullah Momin : Abdullah Momin
  4. bd.momin@gmail.com : Uttarkon2 : Uttar kon
পাকিস্তানে সমঝোতা : শাহবাজ সরকারের বিরুদ্ধে অনাস্থা ভোট দেবে না পিপিপি - Uttarkon
শনিবার, ১৮ মে ২০২৪, ১০:২১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
র‌্যাবের নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়ার খবর সম্পূর্ণ মিথ্যা : যুক্তরাষ্ট্র বঙ্গবন্ধুকন্যার স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের মধ্য দিয়ে দেশে গণতন্ত্র ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা পুনরুদ্ধার হয়– মজিবর রহমান মজনু আদমদীঘিতে আচরণবিধি লঙ্ঘন করায় ঘোড়া মার্কার প্রার্থীর ১০ হাজার টাকা জরিমানা বগুড়ায় সেই নারীর গলায় গুলির অস্তিত্ব পেয়েছে চিকিৎসকেরা শেখ হাসিনা গণতন্ত্রকামী মানুষের নেতা : খাদ্যমন্ত্রী নন্দীগ্রামে ট্রাক বোঝাই ধান চুরি মামলার মূলহোতাসহ গ্রেফতার-৩, ট্রাক জব্দ সারিয়াকান্দিতে শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা প্রচন্ড গরমে চাহিদা বেড়েছে মহাদেবপুরে তৈরি হাত পাখার মহাদেবপুরে সমাজতান্ত্রিক ক্ষেত মজুর ও কৃষক ফ্রন্টের মানববন্ধন দুবাইয়ে বাংলাদেশীদের শত শত বাড়ি হলো কিভাবে

পাকিস্তানে সমঝোতা : শাহবাজ সরকারের বিরুদ্ধে অনাস্থা ভোট দেবে না পিপিপি

  • সম্পাদনার সময় : বুধবার, ১৪ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪
  • ৪০ বার প্রদশিত হয়েছে

পাকিস্তানে প্রধান দুই দল পাকিস্তান মুসলিম লিগ-নওয়াজ (পিএমএল-এন) এবং পাকিস্তান পিপলস পার্টির (পিপিপি) মধ্যে সমঝোতা হয়েছে। সুস্পষ্ট এই সমঝোতার আলোকেই পিএমএল-এন পরবর্তী সরকার গঠন করতে যাচ্ছে। পিএমএল-এন সূত্রের ভাষ্যানুযায়ী, রাষ্ট্রপতি পদটি পাওয়ার পর পিপিপি পার্লামেন্টে পিএমএল-এন সরকারের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব আনবে না।

উল্লেখ্য, মঙ্গলবার রাতে পিএমএল-এন পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী পদে দলীয় প্রার্থী হিসেবে শাহবাজ শরিফের নাম ঘোষণা করে। আর পিপিপি রাষ্ট্রপতি পদে আসিফ আলি জারদারির নাম ঘোষণা করে। ৮ ফেব্রুয়ারির নির্বাচনের পর যে অবস্থা রয়েছে, তাতে করে এই দুই দল সমঝোতা হলে সরকার গঠন নিয়ে কোনো সমস্যা হবে না।

সূত্র জানায়, সরকার গঠনের জন্য দুই দলের মধ্যে যে সমঝোতা হয়েছে, তার আলোকে পুরো পাঁচ বছর মেয়াদে পিএমএল-এন কোট সরকারের বিরুদ্ধে পিপিপি কখনোই অনাস্থা প্রস্তাব আনবে না।

এতে আরো বলা হয়, রাষ্ট্রপতি পদটি পিপিপি পাবে।

সূত্র জানায়, পিএমএল-এন মিত্রদের নিয়ে সরকার গঠন করবে। তবে প্রধানমন্ত্রীকে পাঁচ বছর মেয়াদ পূর্ণ করতে দেয়া হবে। এছাড়া বেলুচিস্তানে সরকার গঠন করতে পিএমএল-এন সমর্থন দেবে।

সূত্রটি আরো জানায়, সমঝোতা অনুযায়ী, অর্থনৈতিক সনদের জন্য একটি পরিকল্পনা প্রণয়ন করা হবে।

সূত্র জানায়, পিএমএল-এন মন্ত্রী পরিষদের সদস্য নির্ধারণের জন্য একটি কমিটি গঠন করছে। এই সরকারে জমিয়তে উলামা-ই-ইসলাম-ফজল (জেইউআই-এফ) অংশ নেবে।

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবারের নির্বাচনে কারাগারে থাকা ইমরান খানের সমর্থকেরা স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে অধিকাংশ আসনে জয়ী হলেও তারা সরকার গঠন করতে পারছে না। অন্যদিকে পাকিস্তানের প্রধান যে দুই দল পিএমএল-এন ও পিপিপি ২০২২ সালে ইমরান খান সরকারকে উৎখাত করে পরে পিএমএল-এন প্রেসিডেন্ট শাহবাজ শরিফের নেতৃত্বে জোট সরকার গঠন করেছিল তারাই নতুন সরকার গঠনের ঘোষণা দিলো।

মঙ্গলবার রাতে ইসলামাবাদে দলগুলোর নেতাদের বৈঠক শেষে যৌথ সংবাদ সম্মেলনে পিপিপির কো-চেয়ারম্যান আসিফ আলী জারদারি নতুন জোট সরকার গঠনের ঘোষণা দেন। এ সময় শাহবাজ শরিফও একই কথা বলেন। তিনি এই নতুন সরকারের নেতৃত্বে থাকবেন।
নওয়াজ শরিফ প্রধানমন্ত্রী প্রার্থী হিসেবে ছোট ভাই শাহবাজকে মনোনীত করার ঘোষণা দেন। একই সঙ্গে তিনি পাঞ্জাব প্রাদেশিক পরিষদের মুখ্যমন্ত্রী প্রার্থী হিসেবে দলের জ্যেষ্ঠ ভাইস প্রেসিডেন্ট ও মেয়ে মরিয়ম নওয়াজের নাম ঘোষণা করেন।

উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার পাকিস্তানে একযোগে জাতীয় ও চার প্রাদেশিক পরিষদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। জাতীয় পরিষদের ২৬৬ আসনের মধ্যে ২৬৫ আসনে ভোট হয়। এতে কোনো দল নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায়নি। জাতীয় পরিষদে ইমরান খান-সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রার্থীরা ৯২, নওয়াজ শরিফের পিএমএল-এন ৭৫ ও বিলাওয়াল ভুট্টো জারদারির পিপিপি ৫৪ আসন পেয়েছে। বাকি আসন পেয়েছে অন্য দলগুলো।

পাকিস্তানে সরকার গঠন করতে জাতীয় পরিষদে অন্তত ১৩৪ আসন দরকার। এ জন্য জোট সরকার গঠন করতে শুরু থেকেই পিপিপি এবং জাতীয় পরিষদে ১৭ আসন পাওয়া মুত্তাহিদা কওমি মুভমেন্ট-পাকিস্তানের (এমকিউএম-পি) নেতাদের সঙ্গে আলোচনা চালিয়ে আসছিলেন পিএমএল-এন নেতারা।

এমনকি তারা সাবেক ক্রিকেটার ও প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের দল তেহেরিক-ই-ইনসাফের (পিটিআই) সাথেও আলোচনার আগ্রহ প্রকাশ করে। কিন্তু দুর্নীতির অভিযোগে আদিয়ালা কারাগারে সাজা ভোগ করা ইমরান খান কোনো ধরনের সহযোগিতা করতে অস্বীকৃতি জানান।

সাংবাদিকদের তিনি বলেছেন, আমরা পিএমএল-এন, পিপিপি কারো সাথেই বসবো না।
এ প্রেক্ষাপটে রোববার লাহোরে পিপিপির চেয়ারম্যান বিলাওয়াল ভুট্টো জারদারির বাসায় দুই দলের নেতাদের বৈঠক হয়। বৈঠক শেষে দুই দল জানায়, পাকিস্তানে রাজনৈতিক স্থিতিশীলতার জন্য ঐকমত্যে পৌঁছেছে তারা। তবে জোট সরকারের প্রধানমন্ত্রী কে হবেন, তা নিয়ে চলছিল আলোচনা। পিপিপির পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রী পদে বিলাওয়ালকে চাওয়া হচ্ছিল।
এসব বিষয় নিয়ে গত সোমবার ও মঙ্গলবার পিপিপির কেন্দ্রীয় কমিটির বৈঠক হয়। এরপর গতকাল বিলাওয়াল এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, তিনি নিজেকে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী পদে প্রার্থিতা থেকে প্রত্যাহার করে নিচ্ছেন।

বিলওয়াল বলেছেন, প্রেসিডেন্ট হিসেবে তিনি তার পিতাকে আবারো দেখতে চান।
তিনি বলেন, তিনি আমার পিতা এ জন্যে আমি এ কথা বলছি না। দেশ এখন এক সঙ্কটময় মুহুর্তে আছে। এ আগুন নেভানোর ক্ষমতা আসিফ আলী জারদারিই আছে।

Please Share This Post in Your Social Media

এই বিভাগের আরও খবর
Copyright &copy 2022 The Daily Uttar Kon. All Rights Reserved.
Powered By Konvex Technologies