1. nobinbogra@gmail.com : Md. Nobirul Islam (Nobin) : Md. Nobirul Islam (Nobin)
  2. bd.momin95@gmail.com : sojibmomin :
  3. bd.momin00@gmail.com : Abdullah Momin : Abdullah Momin
  4. bd.momin@gmail.com : Uttarkon2 : Uttar kon
সিম চাষে ভাগ্য ফিরেছে আদিবাসী নারী দিপালীর - Uttarkon
শনিবার, ১৮ মে ২০২৪, ১০:০০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
র‌্যাবের নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়ার খবর সম্পূর্ণ মিথ্যা : যুক্তরাষ্ট্র বঙ্গবন্ধুকন্যার স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের মধ্য দিয়ে দেশে গণতন্ত্র ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা পুনরুদ্ধার হয়– মজিবর রহমান মজনু আদমদীঘিতে আচরণবিধি লঙ্ঘন করায় ঘোড়া মার্কার প্রার্থীর ১০ হাজার টাকা জরিমানা বগুড়ায় সেই নারীর গলায় গুলির অস্তিত্ব পেয়েছে চিকিৎসকেরা শেখ হাসিনা গণতন্ত্রকামী মানুষের নেতা : খাদ্যমন্ত্রী নন্দীগ্রামে ট্রাক বোঝাই ধান চুরি মামলার মূলহোতাসহ গ্রেফতার-৩, ট্রাক জব্দ সারিয়াকান্দিতে শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা প্রচন্ড গরমে চাহিদা বেড়েছে মহাদেবপুরে তৈরি হাত পাখার মহাদেবপুরে সমাজতান্ত্রিক ক্ষেত মজুর ও কৃষক ফ্রন্টের মানববন্ধন দুবাইয়ে বাংলাদেশীদের শত শত বাড়ি হলো কিভাবে

সিম চাষে ভাগ্য ফিরেছে আদিবাসী নারী দিপালীর

  • সম্পাদনার সময় : সোমবার, ২৯ নভেম্বর, ২০২১
  • ১৫৩ বার প্রদশিত হয়েছে

মহাদেবপুর (নওগাঁ) সংবাদদাতা : শীতকালীন সবজি সিম চাষে ভাগ্য ফিরেছে আদিবাসী নারী দিপালী বর্মনের। সিমের ভালো ফলন ও দাম পাওয়ায় হাসি ফুটেছে দিপালীর মুখে, অভাবী সংসারে এসেছে স্বচ্ছলতা। জানাগেছে, চান্দইল গ্রামের পরশ বর্মনের স্ত্রী দিপালী বর্মন কারিতাসের আশা প্রকল্পের আর্থিক সহায়তায় চলতি মৌসুমে ১০ শতক জমিতে সিম চাষ করেছেন। এই জমি থেকে প্রতি সপ্তাহে প্রায় ৫০কেজি করে সিম উঠছে। প্রতি কেজি সিম ৪০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করছেন। এতে তার প্রতি সপ্তাহে আয় হচ্ছে ২ হাজার টাকা। দিপালী বর্মন জানান, আগে তিনি অন্যের ক্ষেতে শ্রম বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করতেন। গত সেপ্টেম্বর মাসে কারিতাসের আশা প্রকল্পের মাঠ কর্মীদের পরামর্শ ও এককালীন আর্থিক সহায়তা নিয়ে সিম চাষ শুরু করেন। এখন আর অন্যের ক্ষেতে শ্রম বিক্রি করতে হচ্ছে না। নিজের ক্ষেতেই শ্রম দিয়ে আর্থিক ভাবে সাবলম্বী হচ্ছেন। শুধু দিপালী বর্মনই নয় এ এলাকার অনিতা টপ্য, শুকুর মুনি, কল্পনা, মাধবীসহ অনেক আদিবাসী নারী কারিতাসের আশা প্রকল্পের আর্থিক সহায়তা নিয়ে সবজি চাষ করে সাবলম্বী হয়েছেন। কারিতাসের মাঠ কর্মকর্তা হোসান্না হাসদা বলেন, দরিদ্র আদিবাসী পরিবারকে সাবলম্বী করার লক্ষ্যে কারিতাসের আশা প্রকল্প থেকে শস্য বহুমুখীকরণ ও সবজি চাষ কর্মসূচীর আওতায় ৬০জন আদিবাসী প্রান্তিক চাষীকে এককালীন ও অফেরতযোগ্য আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হয়েছে। এ প্রকল্পের মেয়াদ ও পরিধি বৃদ্ধি করা হলে আরো আদিবাসীদের সাবলম্বী করা সম্ভব হবে বলেও তিনি জানান।

Please Share This Post in Your Social Media

এই বিভাগের আরও খবর
Copyright &copy 2022 The Daily Uttar Kon. All Rights Reserved.
Powered By Konvex Technologies